Rangpur Medical College Unit

সন্ধানী  রংপুর মেডিকেল কলেজ ইউনিট                           rpmc

সেবার  হাত প্রসারিত করার মানসে যে সন্ধঅনীল জন্ম  হয়েছিল ১৯৭৭ সালে তা-ই উত্তরবঙ্গের বৃহৎ জনগোষ্ঠীর জন্য আশীর্বাদ হয়ে এল ১৯৮২ সালে।

শুরু হলো সন্ধানী রংপুর মেডিকেল কলেজ ইউনিট এর পথচলা।

দিনটি ছিল ৫ অক্টোবর, ১৯৮২ সাল। রংপুর মেডিকেল কলেজের ক্যান্টিনে মিলিত হলেন এই কলজেরই বেশ কিছু আত্মবিশ্বাসী অথচ কোমলমনা তরুণ-তরুণী। পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী সেদিন এসেছিলেন সন্ধানী, ঢাকা মেডিকেল কলেজ ইউনিটের তৎকালীন সভাপতি জনাব আবুল কালাম আজাদ।

প্রতিষ্ঠিত হয় সন্ধানী রংপুর মেডিকেল কলেজ ইউনিট এবং গঠিত হয় ২১ সদস্য বিশিষ্ট কার্যকরী পরিষদ। সভাপতি মনোনিত হয় ৩য় বর্ষের ছত্র আনিসুল ইসলাম ডিউক এবং সাধারণ সম্পাদক মনোনীত হয় এম আর আলম রবি।

এই কার্যকরী কমিটির ম১ম সভা অনুষ্ঠিত হয় ৮ অক্টোবর ১৯৮২।

সন্ধানী রংপুর মেডিকেল কলেজ ইউনিটের ১ম স্বেচ্ছায় রক্তদান অনুষ্ঠান হয় ১২ অক্টোবর ১৯৮২। এতে আনিসুল ইসলাম ডিউক, মোজাহেদুল হক স্বপন, স্বপন চৌধুরী, সাজেদা-ই-তনু, নজরুল ইসলাম ও হাসিনুল ইসলাম হেলঅল-এ ছয়জন সদস্য-সদস্যা গরীর অসহায়দের সাহায্যার্থে রক্তদান করেন।  এদিনই ১ম সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয় (উপস্থিত সদস্য ৪১ জন) এবং সরকারী বেগম রোকেয়া কলেজে অনুষ্ঠিত হয় ১ম উদ্বুদ্ধকরণ অনুষ্ঠান।

মরণোত্তর চক্ষুদান আন্দোলন সূচনায় সন্ধানী রংপুর মেডিকেল কলেজ ইউনিটের কৃতিত্ব অনেকটাই। সন্ধানী রংপুর মেডিকেল কলেজ ইউনিটের উদ্যোগে এবং সন্ধানী জাতীয় চক্ষুদান সমিতির সহযোগিতায় দেশের ১ম কর্ণিয়া সংযোজন করা হয় রংপুরের অন্ধ কিশোরী চুনচুনির চোখে। বিশ্বের মরণোত্তর চক্ষুদান আন্দোলনের পখিকৃত ডাঃ হাডসন সিলভা টুনটুনির জন্য শ্রীলংকা থেকে কর্ণিয়া নিয়ে আসেন এবং সংযোজন করেন টুনটুনির চোখে। সন্ধানী জাতীয় চক্ষুদান সমিতি চলে আসে পাত প্রদীপের আলোয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *